আদিখ্যেতা (অথবা বাঙালির ভ্রান্তিবিলাস)

আদিখ্যেতা (সং. আধিক্য; ভ্রান্ত বাং. আধিক্যতা > আধিক্যেতা > আদিখ্যেতা৷)

পর্ব শাব্দিক আর্থিক আদিখ্যেতা

আভিধানিক অর্থ যাই হোক, চলতি বাংলায় এর মানে হলো বাড়াবাড়ি — অবশ্যই লোক দেখানোর দ্যোতনায়৷ শব্দটা সাবেক কাল থেকেই বাংলায় চালু। বাঙালির সংস্কৃত জ্ঞান মুষ্ঠিমেয় কিছু মানুষের মধ্যেই সীমিত ছিল চিরকাল; বিদ্যেসাগর মশাইয়ের পর থেকে সে বিদ্যাও, আরো অনেক কিছুর মত, সংখ্যাতত্ত্ব এবং গভীরতার বিচারে ক্ষয়িষ্ণু। এই মেয়েলি বাংলা শব্দটার ব্যাকরণদোষ খতিয়ে দেখলেই বোঝা যায়, এ দেশে স্ত্রীশিক্ষার অভাব কতটা সাবেকি। ভুলটা শুধু ষ্ণ্য-এর সঙ্গে অধিকন্তু তা-যোগই নয়, আধিক্যের চেয়ে আদিখ্যেতার অর্থ ব্যাপ্তি অনেক বেশি, বাড়াবাড়ি রকমের বেশি, যাতে আদিখ্যেতা শব্দ সার্থক!

সিধে সংস্কৃত থেকে টোকা শব্দেও বাঙালির অভিধান বিচ্যুতি হয়; উদাহরণ স্বরূপ পেশ করছি পর্যাপ্ত (পরি+আপ্+ত, অস্যার্থ সমস্ত, পূর্ণ, প্রচুর) ও অপর্যাপ্ত (নঙর্থকে অপ্রচুর) এই শব্দযুগল। বাংলায় পর্যাপ্ত মানে দাঁড়িয়েছে সাফ়িশিয়েন্ট; অপর্যাপ্ত বলতে আমরা লাগামছাড়া, গণনাতীত প্রাচুর্য বুঝি।

শুধু সংস্কৃতের চর্বিতচর্বনই নয়, বহিরাগত অচেনা কঠিন ফল দাঁতে কেটে তামাম ভারত যাকে আমরুদ (<অমৃত) বলে ভাবলো, বাঙালি — ভালবাসায় নয় — বিলিতি পেয়ার-এর সঙ্গে গুলিয়ে ফেলে তার নাম দিল পেয়ারা। আর সেই বাঙালিই সাহেবি পেয়ারকে বলে নাসপাতি, যেটা তার কচকচে কিন্তু স্বাদু ভারতীয় কাল্টিভ়ারের দেশি ডাকনাম। নেকামি আর কাকে বলে!

এই দেখুন, আদিখ্যেতার কথা তুলে নেকামিতে (নতুন বানানে ন্যাকামি; মি-এর পরিবর্তে মো-অনুসর্গ ও চলে) পৌঁছে গেলাম … এই ভ্রান্তিময় বিচরণেই আমাদের বাঙালিত্ব। হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বঙ্গীয় শব্দকোষ অনুযায়ী নেকা শব্দের উৎপত্তি ফার্সি নেক (=সাধু) থেকে, এবং বাংলায় আ-কার যোগে তার চলতি অর্থ ভেকধারী বা ভন্ড; স্ত্রীপ্রয়োগে ভাজা-মাছটি-উলটে-খেতে-জানিনা ভান করা নেকা মেয়েছেলে, ইংরেজিতে ‘কয়’ বা ‘ককেট’। বাংলায় নেকনজরের মধ্যে কেমন যেন একটা প্রচ্ছন্ন শুগার ড্যাডির ভাব আছে৷ সাধুজনের দৃষ্টি মানেই এখন কুদৃষ্টি — সেই তারকেশ্বরের মহান্ত থেকে অদ্যকার নৈরাশ্যজনক সপুত্রক আসারাম অবধি — সংবাদরসিক মাত্রেই জানেন, ডি.এন.এ. পরীক্ষা বা জজিয়তি শিক্ষানবিশের গুপ্তসাক্ষ্যের তোয়াক্কা না করে!

আর ভালবাসা? উত্তর, পশ্চিম ও মধ্য ভারতের তামাম মানুষ প্রেম প্রীত আশনাই ইশক লব (মতান্তরে লাউ) ইত্যাকার নানান শব্দ ব্যবহার করে। ভালবাসায় বাঙালিরা একমেবাদ্বিতীয়ম্। অথচ, দেখুন, ‘ভালবাসা’ শব্দের উৎসসন্ধান এযাবৎ কেউ করেছেন বলে ছাপার অক্ষরে দেখিনি; অবশ্য ছাপার অক্ষরের কতটুকুই বা আমরা, ছাপ্পামারা বাঙালিরা, দেখেছি!

আর অবাঙালি শব্দটাও বাঙালিদের নিজস্ব আবিস্কার। কোনও মরাঠিকে আজ পর্যন্ত কাউকে অমরাঠি বলতে শুনিনি, যদিও শিবসৈনিকেরা সে শব্দ তৈরির দিকে শনৈঃ শনৈঃ এগিয়ে যাচ্ছেন। আমার পরিচিত শিবশঙ্কর (দ্রষ্টব্য, তিনি সৈনিক নন, শঙ্কর) চাটুজ্জে নাগপুরের ছেলে — কমলা লেবুর দেশ যে নাগরঙ্গপুর আগে বিদর্ভে ছিল, এখন মহারাষ্ট্রে। তিনি জীবনে কোনদিন বাংলার মাটিতে পা রাখেন নি, কমলা পোষাক বা কমলা পতাকাও ধারণ করেন নি। বস্তুত, আমার সঙ্গে যখন শেষ দেখা হয়, তখনও তিনি অতিবাম ভাবাদর্শের সমর্থক৷ কালই হয়ত শিবসৈনিকের দল অম্লানবদনে তাঁকে অমরাঠি অপবাদ দিয়ে মহারাষ্ট্রের ভোটার লিস্টি থেকে বাদ দিয়ে দেবে — কে জানে, এত দিনে হয়তো তাড়িয়েই দিয়েছে!

বাঙালিরা যতই উড়ে মেড়ো বাঁধাকপি তেঁতুল বলে অন্যান্য ভারতীয়দের অবজ্ঞা করুক (তা আর কি করা যাবে, যাদের যেমন স্বভাব), আমরা কিন্তু আসলে অনুকরণপ্রিয়। উদাহরণ চাই? টেলিভীষণের (ভীষণ তো বটেই) দৌলতে আমরা নিছক শ্বাশুড়ি নিয়ে সন্তুষ্ট নই আর, তাই ইদানীং শ্বাশুড়িমা বলার রেওয়াজ হয়েছে। পিতাশ্রী মাতাশ্রী শ্বশুরশ্রী ভাসুরশ্রীতে আমাদের সেলুলার পরিবারসকল এখন ভরপুর। প্রেমিক প্রেমিকারা সকলেই বোধহয় এখন লাউঘন্ট খেতে ভালবাসে, তাই পরস্পরকে তারা আই-লাউ-ইউ বলে প্রেম নিবেদন করে। আদিখ্যেতা আর কাকে বলে!

[বাকিটা ক্রমশ প্রকাশ্য…]

Advertisements

3 thoughts on “আদিখ্যেতা (অথবা বাঙালির ভ্রান্তিবিলাস)

  1. Enjoyed reading your blog piece. Had difficulty remembering the primary school lessons of Bengali grammar!!! Except a very vague idea of Sandhi the other big exam time hurdles of karak, bibhakti samas, dhatu etc are all black holes of my mind. The only point of disagreement with you is that Bengali’s commonly have NASHI PEAR( originating in Iran) and not other varieties like Packham, josephine or Red Pear and therefore NASHPATI is not a generic pear it is the special and expensive crispy variety !!!

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s